EIIN : 104302; College Code : 4306

সরকারি কমার্স কলেজ, চট্টগ্রাম

Government College of Commerce, Chattogram

শিক্ষা নিয়ে গড়ব দেশ শেখ হাসিনার বাংলাদেশ

Latest News :
২০২৪ সালের উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) পরীক্ষার কক্ষ নির্দেশিকা, পরীক্ষার তারিখ: ১৪/০৭/২০২৪ || ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের অনার্স ২য় বর্ষের শিক্ষার্থীদের ইনকোর্স ও মূল্যায়ন পরীক্ষা সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি । || ইংরেজি বিভাগের অনার্স ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের ২য় বর্ষের ইনকোর্স ও মূল্যায়ন পরীক্ষার রুটিন। || অর্থনীতি বিভাগের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের অনার্স ২য় বর্ষের ইনকোর্স ও মূল্যায়ন পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি । || মার্কেটিং বিভাগের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের অনার্স ২য় বর্ষের ইনকোর্স ও মূল্যয়ন পরীক্ষার রুটিন । || 2023-2024 শিক্ষাবর্ষের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের বিশেষ বিবেচনার একাদশ বার্ষিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের তালিকা। || শ্রেণি কার্যক্রম বন্ধের বিজ্ঞপ্তি । || ২০২৪ সালের উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) পরীক্ষার কক্ষ নির্দেশিকা, পরীক্ষার তারিখ: ১১/০৭/২০২৪ ও ১৪/০৭/২০২৪ || ব্যবস্থাপনা বিভাগের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের অনার্স ২য় বর্ষের শিক্ষার্থীদের ইনকোর্স ও মূল্যায়ন পরীক্ষা সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি । || হিসাববিজ্ঞান বিভাগের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের অনার্স ২য় বর্ষের শিক্ষার্থীদের ইনকোর্স ও মূল্যায়ন পরীক্ষা সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি । ||

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী কর্নার

বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও বিজয় অর্জনের ৫০ বছর পূর্তি
সুবর্ণজয়ন্তী কর্নার
Slide1

Slide2

Slide2

Slide2

Slide2

Slide2

Photo Gallery

Sports & Cultural Program; Other Program; Study Tour Picture

All Notice

Institute Notice, Board Notice & Other Admission Notice

Login

Admin, Teacher, Staff & Student Login Panel

Admission Form

Online Admission Form.

Logo

আমাদের পরিচিতি

চট্টগ্রাম সরকারী কমার্স কলেজ এর ইতিহাস ও ঐতিহ্য

১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর কলকাতার ‘দি কমার্শিয়াল ইনস্টিটিউট’-এর এক চতুর্থাংশ হিস্যা পাকিস্তানে স্থানান্তরিত হলে সেটির দায়িত্ব প্রফেসর আবদুস সামাদ-কে দেওয়া হয়। তিনি অনেক চিন্তা-ভাবনা করে অবশেষে নবগঠিত পূর্ব পাকিস্তানের বাণিজ্য নগরী চট্টগ্রামকে বেছে নেন। কমার্শিয়াল ইনস্টিটিউটের ভাগে পাওয়া টাইপ রাইটার, বই, ফাইল এবং অন্যান্য যন্ত্রপাতি নিয়ে তিনি চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা হন। চট্টগ্রামে এসে প্রফেসর সামাদ কোথায় এটি স্থাপন করা যায় তাই নিয়ে পড়লেন দোটানায়। কারণ, মনমতো কোনো জায়গা পাওয়া যাচ্ছিলো না। প্রফেসর আবদুস সামাদের পূর্ব পরিচিত ও তৎকালীন চট্টগ্রাম কলেজ-এর অধ্যক্ষ আবু হেনার সাথে এই বিষয়ে আলাপ করতে গেলে তিনি এটিকে তাঁর কলেজের একটি বিভাগ করার প্রস্তাব দেন। এটিকে শুধুমাত্র একটি বিভাগ না করে সম্পূর্ণ আলাদা একটি ইন্সটিটিউট করাই ছিল অধ্যক্ষ সামাদের উদ্দেশ্য। তাই এই প্রস্তাবে সাড়া না দিয়ে প্রফেসর সামাদ এর বিকল্প খুঁজতে থাকেন। অবশেষে কোতোয়ালী থানাধীন বর্তমান জি.পি.ও. (জেনারেল পোস্ট অফিস) এর সামনে শুকতারা বিল্ডিং এর দুই তলার পুরোটাই অস্থায়ীভাবে ভাড়া নিয়ে শুরু হয় ‘চট্টগ্রাম কলেজ অব কমার্স’ তথা বর্তমান সরকারি কমার্স কলেজের যাত্রা।

সদ্য ভাগ হওয়া দেশের বাণিজ্যিক ও ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডের নানাবিধ চাহিদা মেটাতে বিশেষ করে ব্যাংক, বীমা, শিল্প-কারখানা, ব্যবসা-বাণিজ্যের কাজসমূহ সুচারুরূপে পরিচালনার জন্য বিশেষায়িত এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এখানে ফাইনাল ডে কোর্স (বর্তমান এইস.এস.সি.) ও বি.কম ক্লাস চালু হয় ১৯৪৭ এর সেপ্টেম্বর মাসে। প্রিন্সিপাল সামাদ ছাত্রদের_কে বাণিজ্য বিষয়ক শিক্ষা গ্রহণের জন্য উদ্বুদ্ধ করতেন।

সরকারিকরণ

১৯৪৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে এটি নিজ ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত হচ্ছিলো। পরবর্তীতে এটি সরকারি স্বীকৃতি পায় এবং ‘চট্টগ্রাম কলেজ অব কমার্স’ থেকে ‘গভর্নমেন্ট কলেজ অব কমার্স, চিটাগাং’-এ রূপান্তরিত হয়।

অধ্যক্ষ সামাদের চেষ্টায় কলেজটি পূর্ব পাকিস্তান সরকারের অর্থ ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন লাভ করে এবং একটি বিশেষায়িত কলেজ রূপে চালু হয়।

জিপিও থেকে নাহার ভবনে স্থানান্তর

ছাত্র সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় এবং শুকতারা বিল্ডিংয়ে স্থান সংকুলান না হওয়ায় ১৯৫৪ সালে স্ট্রান্ড রোডস্থ, বাংলাবাজারে অবস্থিত তৎকালীন চট্টগ্রামের সবচাইতে বড় অট্টালিকা নাহার বিল্ডিংয়ে কমার্স কলেজ স্থানান্তরিত হয়। সরকারি কমার্স কলেজ ১৯৫৪-১৯৫৭ সাল পর্যন্ত এখানে চালু ছিল।

আগ্রাবাদে মূল ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

১৯৫৭ সালের ২৮ মার্চ চট্টগ্রামের তৎকালীন বিভাগীয় কমিশনার এস. এম. হাসান, সিএসপি আগ্রাবাদে বর্তমান মূল ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। এখানে, ১৯৫৭ সালের শেষ দিকে সরকারি কমার্স কলেজ নাহার বিল্ডিং অর্থাৎ বাংলাবাজার থেকে স্থায়ীভাবে এসে তার পূর্ণাঙ্গ কার্যক্রম শুরু করে।

অবস্থান

কলেজটি চট্টগ্রাম শহরের আগ্রাবাদ এলাকার, মোগলটুলী, কমার্স কলেজ রোডে অবস্থিত। ৫.১৬ একর জায়গা নিয়ে চট্টগ্রামের ব্যস্ততম আগ্রাবাদ বাণিজ্যিক এলাকার পূর্ব প্রান্তে মনোরম পরিবেশে অবস্তিত চট্টগ্রাম সরকারি কমার্স কলেজ ব্যবসায় শিক্ষার ক্ষেত্রে একটি বিশেষায়িত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। দেশের মাত্র দুটো সরকারি কমার্স কলেজের মধ্যে এটি সবচেয়ে প্রাচীন। ১৯৪৭ খৃষ্টাব্দে ভারত বিভাজনের পর এ কলেজের প্রতিষ্ঠা।  


কমার্স কলেজ রোডে অবস্থিত সরকারি কমার্স কলেজের মূল প্রবেশদ্বার । 

কলেজের গুরুত্বপূর্ণ কোড

চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ড কোড   : 3025
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় কোড : 4306
ইআইআইএন                    : 104302

কলেজের বর্তমান অবকাঠামো

মূল ভবন / প্রশাসনিক ভবন (৩ তলা বিশিষ্ট)
হিসাববিজ্ঞান ভবন (৩ তলা বিশিষ্ট)
নতুন একাডেমিক ভবন (৫ তলা বিশিষ্ট)
শহীদ রফিক মিলনায়তন (অডিটোরিয়াম)
শহীদ আবদুল হামিদ ছাত্রাবাস (পরিত্যাক্ত)
সরকারি কমার্স কলেজ ছাত্রী নিবাস
অধ্যক্ষের বাসভবন
শহীদ মিনার
বঙ্গবন্ধু মঞ্চ

Message

মাননীয় মন্ত্রী - শিক্ষা মন্ত্রণালয়

জনাব মহিবুল হাসান চৌধুরী 

মাননীয় মন্ত্রী


জনাব মহিবুল হাসান চৌধুরী (নওফেল) ২৮৬, চট্টগ্রাম-০৯ (বাকলিয়া-কোতয়ালি) সংসদীয় আসনে বিগত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে ১১ জানুয়ারি ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ তারিখে তাঁকে মন্ত্রিপরিষদে নিযুক্ত করেন।

 

তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের উপমন্ত্রী হিসেবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে ০৭ জানুয়ারি ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ হতে ১১ জানুয়ারি ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। 

 

রাজনৈতিক পরিচয়

 

জনাব মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল একটি সম্ভ্রান্ত ও প্রথিতযশা রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। তাঁর বাবা মরহুম আলহাজ্ব এ বি এম মহিউদ্দীন চৌধুরী; জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একজন একনিষ্ঠ কর্মী হিসেবে মহান মুক্তিযুদ্ধের একজন সংগঠক ছিলেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন জাতীয় নেতা ও বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার একজন পরীক্ষিত রাজনৈতিক সহকর্মী ছিলেন। তিনি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ চট্টগ্রাম মহানগরের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং চট্টগ্রামের প্রথম নির্বাচিত মেয়র হিসেবে তিন-তিনবার বিজয়ী হয়ে জনকল্যাণে কাজ করে সারা দেশব্যাপী প্রশংসিত হন। জনাব এ বি এম মহিউদ্দীন চৌধুরী বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের একজন অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হিসেবে শেখ ফজলুল হক মনির সহকর্মী ছিলেন এবং বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করা হলে বৃহত্তর চট্টগ্রাম ও প্রতিবেশী দেশ ভারতে দীর্ঘদিন এই নৃশংস হত্যার রাজনৈতিক প্রতিবাদে অংশ নেন। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সাথে নিবিড়ভাবে সারা বাংলাদেশে আওয়ামী লীগকে প্রতিষ্ঠার দীর্ঘ রাজনৈতিক সংগ্রামে লিপ্ত ছিলেন।

পারিবারিক ধারাবাহিকতায় জনাব মহিবুল হাসান চৌধুরী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক কার্যক্রমে শৈশবেই সম্পৃক্ত হন। “আমরা রাসেল” নামক একটি শিশু-কিশোর সংগঠনে তিনি তাঁর পিতার উৎসাহে সম্পৃক্ত হয়ে বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেল হত্যার বিচারে শিশু-কিশোরদের সমাবেশ ও সৃষ্টিশীল কাজের সাথে যুক্ত হন। তিনি তাঁর পিতার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক ও সাংগঠনিক কার্যক্রমসমূহ দেখার এবং সম্পৃক্ত হওয়ার সুযোগ পান। পরবর্তীতে ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াতের দুঃশাসন এবং এক-এগারোকালীন সময়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার মুক্তির বিষয়ে যুক্তরাজ্যে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক প্রচার-প্রচারণায় সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। ২০১২ সালে আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি গঠনকালে তাঁকে কেন্দ্রীয় কমিটিতে সম্পৃক্ত করার জন্য যুবলীগ চেয়ারম্যান জনাব ওমর ফারুক চৌধুরী উদ্যোগী হন। অতঃপর ২০১৩ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের চট্টগ্রাম মহানগর কমিটিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা জনাব মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলকে কার্যনির্বাহী কমিটিতে সদস্য হিসেবে নির্বাচিত করেন। ২০১৬ সালের বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ষোড়শ কাউন্সিলে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে তিনি আওয়ামী লীগ সভাপতি বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নির্দেশনায় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হয়ে ঢাকা বিভাগের দায়িত্ব প্রাপ্ত হন। জনাব চৌধুরী ঢাকা বিভাগে গুরুত্বপূর্ণ সাংগঠনিক দায়িত্ব পালন করেন। নারায়নগঞ্জ ও গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলের বিজয়ী হওয়ার পিছনে নিরলসভাবে কাজ করেন এবং দায়িত্বপ্রাপ্ত হওয়ার পর নারায়নগঞ্জ, গাজীপুর, শরীয়তপুর এবং ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি পুনর্গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। একটি প্রথিতযশা রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হিসেবে জনাব মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে আওয়ামী লীগ সভাপতি বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রদত্ত রাজনৈতিক দায়িত্ব অত্যন্ত নিষ্ঠা এবং দায়িত্বশীলতার সাথে পালন করে যাচ্ছেন।

 

পেশাগত ও শিক্ষাগত পরিচয়

 

জনাব চৌধুরী পেশায় একজন আইনজীবী। তিনি মন্ত্রিপরিষদে নিযুক্ত হওয়ার পূর্বে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট বার ও ঢাকা আইনজীবী সমিতির একজন সদস্য হিসবে “দি লিগ্যাল সার্কেল” নামক একটি আইন পরামর্শ প্রতিষ্ঠানে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানসমূহের জন্য আইনজীবী হিসেবে ০৯ (নয়) বছর নিয়োজিত ছিলেন। এই পেশাগত সময়ে তিনি বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়, জাপান সরকারের সাহায্য সংস্থা জাইকাসহ বহুজাতিক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানসহ দেশীয় ও বিদেশী বিনিয়োগ, দ্বন্দ্ব নিরসন ইত্যাদি বিষয়ে আইনগত পরামর্শ ও সহযোগিতা প্রদান করেছেন।

তিনি বাংলাদেশে বিদ্যালয় জীবন সমাপ্ত করে, যুক্তরাজ্যের ‘লন্ডন স্কুল অফ ইকনমিক্স (এল এস ই) থেকে আইন ও নৃ বিজ্ঞান এই দুই বিষয়ের উপর যৌথভাবে স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেন। পরবর্তীতে তিনি লন্ডনের ‘কলেজ অফ ল’ থেকে স্নাতকোত্তর বার ভোকেশনাল ডিগ্রী (PGD-Bvc) অর্জন করেন। তিনি ‘লিংকনস ইন’ নামক ইংরেজ আইনজীবীদের বার সমিতিতে একজন ব্যারিস্টার হিসেবে সংঘোষিত ও লিপিবদ্ধ হন এবং পরবর্তীতে ব্যারিস্টারের সহযোগী (কোর্ট ক্লার্ক) হিসেবে ইংল্যান্ডের বেশকিছু নিম্ন আদালত ও উচ্চ আদালতের ‘প্রিন্সিপাল রেজিস্ট্রি অফ ফ্যামিলি’ ডিভিশনে কাজ করেন। তিনি স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও বিরোধ মীমাংসা বিষয়সমূহের উপরে প্রশিক্ষিত হন। পরবর্তীতে বাংলাদেশে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের একজন এ্যাডভোকেট হিসেবে নিবন্ধিত হওয়ার পরে আইন পেশায় সফলতার সাথে পরামর্শক হিসেবে কাজ করেছেন।

অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত)

প্রফেসর আলাউদ্দিন আল আজাদ    
অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত)  

বিশ্ব আজ দ্রুত পরিবর্তনের ধারায় ধাবমান। এই পরিবর্তনকে মানিয়ে নিতে আমাদেরকেও সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। বিশ্বায়নের চ্যালেঞ্জকে মাথায় নিয়ে বর্তমান সরকারের 'রূপকল্প ২০২১' বাস্তবায়নের পর সবাইকে সমান তালে এগিয়ে যেতে হবে পরবর্তী লক্ষ্যে। ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত রাষ্ট্র গঠনের যে সোপানে আমাদের যাত্রা শুরু হয়েছে তার সফল পরিসমাপ্তিতে আজকের ছাত্র সমাজকেই অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। সেই প্রচেষ্টায় চট্টগ্রাম সরকারী কমার্স কলেজ একটি উজ্জ্বল নাম। বর্তমানে এই প্রতিষ্ঠানের নতুন উদ্যোগ 'অনলাইনকার্যক্রম' সেই প্রচেষ্টাকে আরও বহুগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। সরকার ঘোষিত ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে প্রতিষ্ঠানের পথ চলা হোক দীপ্তিময়। এ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা নিজ নিজ ক্ষেত্রে একজন সফল মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে এ আমার প্রত্যাশা।    

Latest Notice

College Notice

Date Heading
11/07/2024 ২০২৪ সালের উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) পরীক্ষার কক্ষ নির্দেশিকা, পরীক্ষার তারিখ: ১৪/০৭/২০২৪
10/07/2024 ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের অনার্স ২য় বর্ষের শিক্ষার্থীদের ইনকোর্স ও মূল্যায়ন পরীক্ষা সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি ।
10/07/2024 ইংরেজি বিভাগের অনার্স ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের ২য় বর্ষের ইনকোর্স ও মূল্যায়ন পরীক্ষার রুটিন।
10/07/2024 অর্থনীতি বিভাগের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের অনার্স ২য় বর্ষের ইনকোর্স ও মূল্যায়ন পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি ।
10/07/2024 মার্কেটিং বিভাগের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের অনার্স ২য় বর্ষের ইনকোর্স ও মূল্যয়ন পরীক্ষার রুটিন ।
10/07/2024 2023-2024 শিক্ষাবর্ষের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের বিশেষ বিবেচনার একাদশ বার্ষিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের তালিকা।
10/07/2024 শ্রেণি কার্যক্রম বন্ধের বিজ্ঞপ্তি ।
10/07/2024 ২০২৪ সালের উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) পরীক্ষার কক্ষ নির্দেশিকা, পরীক্ষার তারিখ: ১১/০৭/২০২৪ ও ১৪/০৭/২০২৪
10/07/2024 ব্যবস্থাপনা বিভাগের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের অনার্স ২য় বর্ষের শিক্ষার্থীদের ইনকোর্স ও মূল্যায়ন পরীক্ষা সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি ।
09/07/2024 হিসাববিজ্ঞান বিভাগের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের অনার্স ২য় বর্ষের শিক্ষার্থীদের ইনকোর্স ও মূল্যায়ন পরীক্ষা সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি ।
Date Heading
Date Heading

724

TODAY

1147

YESTERDAY

117798

LAST 7 DAYS

579253

TOTAL

Photo Gallery